1. news@dailydeshnews.com : Admin2021News :
  2. : deleted-txS0YVEn :
সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বাগমারা’য় উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় ও আইন শৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত স্টার্টআপ বিনিময় করবে বাংলাদেশ-জাপান দূর থেকে দেখে দৌড়ে এসে ছেলেটি জড়িয়ে ধরলো: শাকিব খান খুলনা-রাজশাহী স্টেডিয়ামে নজর দিয়ে আন্তর্জাতিক মানের বানাবে বিসিবি বানেশ্বরে কাপড় ব্যবসায়ীর উপরে হামলায় ৪ জন আহত; দোকানপাট বন্ধ রেখে ধর্মঘট পুলিশের আইজপির নামে হোয়াটসঅ্যাপে প্রতারণা মামলায় নওগাঁর এক যুবকের কারাদণ্ড শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন, সভাপতি বিশ্বজ্যোতি সম্পাদক সোহেল রাজশাহীতে পিবিআই’র প্রধান অ্যাডিশনাল আইজিপির জেলা ইউনিট পরিদর্শন   দেশে ফিরলেন সৌদিতে নির্যাতনের শিকার সেই রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে সরকার কখনোই কিছু করবে না: শিক্ষামন্ত্রী

খুলনায় মায়ের নামের জমি দেখে গেলেন প্রধানমন্ত্রী

দৈনিক দেশ নিউজ ডটকম ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ২১ পঠিত

খুলনায় মায়ের নামে কেনা জমি দেখে গেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার (৬ জানুয়ারি) বিকাল ৩টা ৫৬ মিনিটে ব্যক্তিগত সফরে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া থেকে সড়ক পথে খুলনার দিঘলিয়ার নগরঘাট এলাকায় তার মা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নামে কেনা পাট গোডাউনস্থলে পৌঁছান। সেখানে তিনি ৪৫ মিনিট অবস্থান করেন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা এ তথ্য নিশ্চিত করেন। আওয়ামী লীগ দলীয় সূত্র জানায়, মায়ের নামের জমি পরিদর্শন শেষে বিকাল ৫টা ১০ মিনিটের সময় প্রধানমন্ত্রী নগরীর শেখপাড়ায় তার চাচা শহিদ শেখ আবু নাসেরের বাড়ি যান। সেখানে ৫০ মিনিট অবস্থান করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এ সময় সাক্ষাৎ করেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুজিত অধিকারী, খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবু, খুলনা সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ফকির সাইফুল ইসলাম এবং সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক তসলিম আহমেদ আশা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর চাচাতো ভাই সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন, সংসদ সদস্য সেখ সালাউদ্দিন জুয়েল ও শেখ হেলাল উদ্দিনের ছেলে সংসদ সদস্য সারহান নাসের তন্ময়। পরে সন্ধ্যা ৬টায় তিনি সড়ক পথে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর গাড়িবহর খুলনার খানজাহান আলী সেতু (রূপসা সেতু) পার হয়ে নগরীর আড়ংঘাটা বাইপাস ধরে দিঘলিয়া ঘাটে পৌঁছায় ৩টা ৪৭ মিনিটে। ৩টা ৫০ মিনিটে ভৈরব নদের ফেরি পার হয়ে তিনি দিঘলিয়ার নগরঘাট এলাকায় তার মা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নামে কেনা পাট গোডাউন স্থলে পৌঁছান। সেখানে তিনি ৪৫ মিনিট অবস্থান করেন। এ সময় আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার গোয়েন্দা ইউনিটগুলোর কঠোর নজরদারিতে ছিল গোটা এলাকা। এর আগে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৮ সালের ৩ মার্চ খুলনায় এসেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে রূপসা সেতু থেকে দিঘলিয়া ঘাট পর্যন্ত খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে বিপুলসংখ্যক তোরণ নির্মাণ করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এক নজর দেখতে রূপসা সেতু থেকে দিঘলিয়া পর্যন্ত রাস্তার দুধারে হাজারো মানুষ ভিড় করেন। মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা জানান, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার ছোটবোন শেখ রেহানা সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন তার চাচাতো ভাই সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন, সংসদ সদস্য সেখ সালাউদ্দিন জুয়েল, শেখ হেলাল উদ্দিনের ছেলে সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময়সহ পরিবারের সদস্যরা। তিনি আরও জানান, ব্যক্তিগত সফর হওয়ায় আওয়ামী লীগের কোনো নেতার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার সুযোগ ছিল না। সে কারণে সেখানে তারা যেতে পারেননি। তবে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি প্রধানমন্ত্রীর মায়ের জায়গাটি দেখভাল করার কারণে তিনি সেখানে ছিলেন। বাবুল রানা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দিঘলিয়ার নগরঘাট এলাকায় একটি জমি কেনা ছিল। জমির ওপর পাট গোডাউন ছিল। নেত্রী দীর্ঘদিন সেখানে আসেননি। তবে ১৯৮২ সালে তিনি একবার এসেছিলেন। পাকিস্তান আমলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার সহধর্মিনী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নামে দিঘলিয়ার ভৈরব নদের কোলঘেষে নগরঘাট এলাকায় ১ একর ৪৪ শতক (৪ বিঘা) জমিতে পাট গোডাউন ও এক কক্ষ বিশিষ্ট ঘরসহ জমি কেনেন। তৎকালীন সময়ে বঙ্গবন্ধুর ছোটভাই শেখ আবু নাসের এ জমি দেখাশোনা করতেন। বাবা-মায়ের মৃত্যুর পর প্রধানমন্ত্রী এ জমির মালিক হলেও জমিটির কথা জানতেন না তিনি। ২০০৭ সালে তিনি তার ব্যক্তিগত আইনজীবীর মাধ্যমে এ জমির খোঁজ পান। বঙ্গবন্ধুর পুরাতন সেই পাট গোডাউন ভেঙে সেখানে আধুনিক গুদাম ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। নদীর তীরবর্তী স্থানে নির্মাণ করা হয়েছে রেস্ট হাউজ। গোডাউন সংলগ্ন পাকা রাস্তার নামকরণ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের নামে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All Rights Reserved © DAILY DESH NEWS.COM 2020-2023
Theme Customized BY Sky Host BD